kalchitro
Bongosoft Ltd.
ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই, ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯

রুচিসম্মত গণপরিবহন কমাতে পারে যানজট


কালচিত্র | কামরুজ্জামান প্রকাশিত: এপ্রিল ১৭, ২০২২, ০৮:৩৫ পিএম রুচিসম্মত গণপরিবহন কমাতে পারে যানজট
মগবাজার-মৌচাক ফ্লইওভারের উপর যানজট। ছবি: লেখক

 

 

কামরুজ্জামান

ঢাকার যানজট বহুল আলোচিত ঘটনা। এটা নিয়ে কম আলোচনা-সমালোচনা হয়নি। এই আলোচনা চলমান।পত্রিকায় প্রতিনিয়ত কলাম লেখা হচ্ছে, বিশেষজ্ঞগণ মতামত দিচ্ছেন, সেমিনার-সিম্পোজিয়াম হচ্ছে, জোড়বেজোড় থিওরি আসছে, অফিসের সময়সূচির পরিবর্তন বিষয়েও মতামত দিচ্ছেন কেউ কেউ। কিন্তু কোনো আলোচনাই, কোনো ফরমুলাই যেন কাজে আসছে না।যানজট নিরসনে ট্রাফিক ব্যবস্থা ঢেলে সাজাতেও বলছেন অনেকেই।

গণপরিবহনের বিশৃঙ্খলার সবচেয়ে বড় শিকার মধ্যবিত্ত-নিম্নমধ্যবিত্ত। উচ্চবিত্তরাও আছেন সমস্যায়। নিজের ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে চলাচলেও স্বস্তি নেই।যানজটের কারণে গাড়ির গতি কম।তারাও সময়মত গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেন না।

আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো- রুচিসম্মত গণপরিবহন হতে পারে যানজট নিরসনের অন্যতম উপায়। অস্বীকার করার উপায় নেই যে, ঢাকার গণপরিবহনগুলোকে চলন্ত ডাস্টবিন বললেও হয়ত ভুল বলা হবে না। নোংরা পরিবেশ, নোংরা সিট, ধুলোবালি, ঠাসাঠাসি করে যাত্রী নেওয়া। গায়ে গায়ে ঘেষাঘেষি করে চলাচল করা ছাড়া উপায় থাকে না।যাত্রীদের আর মানুষ মনে হয় না, তারা আলুর বস্তা হয়ে যান।যে পোশাক পরে অফিসে যাওয়া হয় সেটা অফিসে পৌঁছানোর আগেই ময়লা হয়ে যায়

বাংলাদেশের মানুষের উন্নয়ন হচ্ছে, মাথাপিছু আয় বাড়ছে, রুচির পরিবর্তন হচ্ছে। তবে, সেই সাথে উন্নত হচ্ছে না পরিবহণগুলোর মান।ভাঙাচোরা লক্কড়-ঝক্কড় গাড়িতে চলাচল করতে উৎসাহ পায় না উচ্চবিত্তরা। এটাতে তাঁদের দোষ দেখি না। সবাই চায় তার পরিবার একটু স্বচ্ছন্দে চলাচল করুক, আরামে গন্তব্যে পৌঁছাক, নিরাপদে ফিরে আসুক বাসায়। যার গাড়ি কেনার সামর্থ আছে তিনি তাই ব্যক্তিগত গাড়িতেই চড়বেন- যদি না রুচিসম্মত গণপরিবহনব্যবস্থা গড়ে তোলা যায়।

উন্নতমানের গাড়ি পর্যাপ্ত থাকলে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্তর পাশাপাশি উচ্চবিত্তরাও গণপরিবহনে চড়তে পারেন। সেটা হলে রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ কমতে পারে। কোস্টার জাতীয় গাড়ি বা উন্নতমানের এসি-নন-এসি বাস চালু করলে অবস্থার উন্নতি হতে পারে। এক্ষেত্রে দাঁড়িয়ে যাত্রী নেওয়া, যত্রতত্র পার্কিং, গাড়ি থামিয়ে যাত্রী ওঠানো-নামানো কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ, টিকেটিং সিস্টেম চালু, সহনীয়মাত্রায় ভাড়া নির্ধারণ, ভদ্র, মার্জিত শিক্ষিতদেরকে ড্রাইভার, সুপারভাইজার, কন্ট্রাক্টর হতে উৎসাহিত করে সুন্দর একটা পরিবেশে চলাফেরা করা নিশ্চিত করা গেলে রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ি কমানো সম্ভব হবে বলে মনে হয়। এটা হলে যানজট কিছুটা হলেও কমতে পারে।

 

লেখক: ইতিহাস গবেষক

 

Side banner